.:সড়ক যোগাযোগ সর্ম্পকিত যে কোন সমস্যার তথ্য প্রদান করুন:.    Back to Home | Search by Id 
Back to Home Page
 


Your IP Address: 35.175.200.4
Your Client IP Address: 35.175.200.4
Your Server IP Address: 35.175.200.4
Your Browser: CCBot/2.0 (https://commoncrawl.org/faq/)

সড়ক যোগাযোগ সর্ম্পকিত যে কোন সমস্যার তথ্য প্রদান করুন
প্রদানকারীর নাম : *

ফোন নম্বর: *


ই-মেইল : *


স্হান, জেলা : *

বর্ণনা : *

সমস্যার/ক্ষতিগ্রস্থ স্থানের ছবি (যদি থাকে):
(Max size : 2MB)

আরো ছবি দিন


কোড নম্বরটি লিখুন



তথ্য প্রদানে কোনো কারিগরী ত্রুটির সম্মুখীন হলে যোগাযোগ করুন - ৯৫৭৫৫২৭ এই নম্বরে, E-mail : programmer1@rthd.gov.bd

 
ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রাপ্ত সড়ক যোগাযোগ সর্ম্পকিত তথ্য
Print  
9509. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : Natore
তারিখ ও সময় : 13 Jun, 2019 03:43:55
বর্ণনা :

কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলছি যে, আপনাদের দৃষ্টি কি সরক ও পরিবহনের দিকে আছে না অন্য কোথাও? কেননা আপনারা বলছেন যে, কোন পরিবহনে পবিত্র ঈদ উপলক্ষে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে না অথচ ঈদের আগে থেকে শুরু করে আজ পযর্ন্ত বাসে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হচ্ছে। ৪৪০ টাকার ভাড়া দিতে হচ্ছে ৭০০ টাকা করে বাকি ২৬০ টাকা কোথায় যাচ্ছে  আমরা তা জানতে চাই। নাকি সরক ও জনপথের কর্তৃপক্ষের মদদ পেয়েই আজ তারা লুটে পুটে খাওয়ার সুযোগ পাচ্ছে?


জবাব :

See Reply

ধন্যবাদ, অভিযোগের বর্ণনায় ঈদ উপলক্ষে যাত্রীবাহী বাসের অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট পরিবহনের নাম, গাড়ির নম্বর, ভাড়ার টিকেটের ফটোকপি ও গন্তব্য স্থান উল্লেখ করে অভিযোগ করা হলে মোটরযান আইন ও বিধি মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


9508. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : কেরাণীগ্ঞ্জ, ঢাকা
তারিখ ও সময় : 12 Jun, 2019 13:55:09
বর্ণনা :

‘‘মোটর সাইকেলে উচ্চ শব্দের হরণ ব্যবহার ও সংযোজন নিষিদ্ধ করুন ‘’


আমরা জানি মানুষের স্বাভাবিক শ্রবণ ক্ষমতা  ৪০ থেকে ৬০ ডেসিবল। এর ওপরে হলে মানুষের শ্রবণ শক্তি ক্ষতিগ্রস্থ হতে থাকবে। তাছাড়া ৬০ ডেসিবল শব্দকে উচ্চশব্দ বলা হয়ে থাকে। যার স্থিতি ৫সেকেন্ড হলে মানুষের হার্ট বিট সহ উচ্চরক্তচাপ বৃদ্ধি পেতে থাকবে। আর তাতে মানুষ নানাবিধ রোগে আক্রান্ত হতে থাকবে। এখন কথা হলো  আমাদের সারা দেশে বিশেষ করে ঢাকা শহরে ইদানিং বিভিন্ন কারণে মোটর সাইকেলের ব্যবহার এত বেশি বেড়ে গেছে শাখা রোড সহ সকল অলিগলিতে প্রতি এক মিনিটে ২থেকে ৩টি মোটরসাইকেল ক্রস করে যাচ্ছে আর বড় রাস্তায় ৫/৬টি। তাহলে আমি যদি শাখা রাস্তায় ৩০মিনিট হাঁটি তবে আমাকে কমপক্ষে ৬০ টি মোটর সাইকেল ক্রস করবে। কিন্তু দুখঃ জনক ঘটনা হলো এসব মোটর সাইকেলে শব্দ সহনশীল হরণ ব্যবহার করা হয়নি (সম্ববত: হইড্রলিক হরণ ) বিধায় এসব হরণ থেকে ৮০ থেকে ১২০ বা তার ও বেশি শব্দ উৎপন্ন হয়। তার ওপর চালকদের অসচেতনতার কারণে তারা যখন তখন যত্রতত্র কারণে অকারণে বা নিজের খামখেয়ালী বশত: অনবরত হরন দিয়ে জনমনে আতংকের সৃষ্টি করে ফলে রাস্তায় চলাচলরত শিশু বৃদ্ধ সহ অসুস্থ ব্যক্তিরাতো ক্ষতিগ্রহস্থ হচ্ছে তার ওপর সুস্থ ব্যক্তিরা প্রতিদিন অসুস্থ হয়ে বাসায় ফিরছে। তাছাড়া বিবেকহীন চালকরা হরণ বাজানো নিষিদ্ধ এলাকায় যেমন স্কুল, কলেজ, মসজিদ, বাজার, আবাসিক এলাকা এবং জনসমাবেশ এলাকায়  হরণ ব্যবহার করে নিঃসংকোচে।আবার অনেকে খেলার চলে বেপরোয়া গতিতে গাড়ী চালিয়ে হরণ দীর্ঘক্ষণ চেপে ধরে। উদাহরণ স্বরূপ: আমি গাড়ী জ্যামের কারনে খুব ধীরে ধীরে ফুটপাত দিয়ে হেঁটে যাচ্ছি কিন্তু আমার পিছনে একজন মোটর বাইক চালক অনর্থক উচ্চ শব্দের হরণ বাজিয়ে যাচ্ছে , তাকে আমি হরণ না বাজাতে অনুরোধ করলাম কিন্তু  সে আমার অনুরোধের একটু ভ্রক্ষেপ ও করল না ফলে দেখা গেল জ্যামে আটকে থাকা অসংখ্য রিক্সা, সিএনজি যাত্রী ও পথচারী সকলে চরম শব্দ দূষণের স্বীকার হলো।  আবার দেখা গেল আমরা একদল পথচারী নিরাপদ দুরুত্বে অপেক্ষমান কিংবা কেহ হাঁটছি এমতাবস্থায় একটি মোটর সাইকেল হঠাৎ আমাদের কাছাকাছি এসে তীব্র শব্দের হরণটি চেপে ধরল তাতে আমরা অনেকে ভ্যাবা চ্যাকা খেয়ে দেখলাম যে মোটর সাইকেলটির সামনে একটি রিক্সা খুব ধীরে ধীরে যাচ্ছে অথচ মোটর সাইকেলের ডান পার্শ্বে যথেষ্ট জায়গা ছিল তবুও সে হরণ ব্যবহার করল। আবার দেখা গেল রাস্তার পাশ ধরে আমি একা হেঁটে যাচ্ছি আমি ছাড়া কোন লোক বা গাড়ী নাই অথচ বিপরীত দিক থেকে একটি মোটর সাইকেল তীব্রতার সহিত আমার কাছা কাছি এসে উচ্চ শব্দের হরণ বাজিয়ে চলে গেল। আমি আমার কানে আঙ্গুল দিয়েও শব্দের তীব্রতা হইতে রক্ষা পেলাম না। আবার দেখা গেল রাস্তায় প্রচুর জ্যাম সকল গাড়ীই প্রতিবার এক ফুট এর বেশি এগোতে পারছে না এমতাবস্থায় শুধু একটি মোটর সাইকেল একটি রিক্সকে ওভারটেক করার জন্য অনবরত 120 ডেসিবলের হরণটি বাজিয়ে চলছে। এতে শুধু রিক্সা আরোহী নয় জ্যামে আটকে পরা সকলেই ক্ষতিগ্রস্থ হলো। আবার দেখা গেল একটি মোটর সাইকেল আরোহীর যাত্রা শেষ হচ্ছে গলিটির ১০গজ এর মাথায় কিন্তু সে এইটুকু রাস্তা পার হওয়ার জন্য মোটর সইকেল এর গতি হঠাৎ 100 কিঃমিঃ বাড়িয়ে প্রচণ্ড ‍উচ্চ শব্দের হরণ বাজিয়ে গন্তব্যে গিয়ে হঠাৎ  থেমে গেল। এতে গলির মধ্যে অবস্থানরত পথচারী সহ বসবাসরত সকলেই ক্ষতিগ্রস্থ হল। আবার দেখা গেল ঢাকা শহরের অসংখ্য ছোট ছোট অলিগলি যে গুলোর প্রস্থ ১২ থেকে ১৪ ফুট আর দুই পাশে শুধু আবাসিক ভবন, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান , ভ্রাম্ম্যমান ব্যবসায়ী, হকার, অসংখ্য পথচারী এরই মধ্যে দিয়ে অবিবেচক অসংখ্য মোটরচালক সারাক্ষণ বিরামহীন ভাবে উচ্চ শব্দের হরণ চেপে ধরে বসে থাকে সুযোগ পেলে বীরদর্পে ধীর গতিতে এগিয়ে চলে। তাতে সে যে দ্রুত গতিতে অল্প সময়ে যেতে পারল তা নয় বরং স্বাভাবিক গতিতেই তাকে যেতে হল অথচ মাঝখানে উচ্চ শব্দের কারণে আশপাশের সকল মানুষজন ক্ষতিগ্রস্থ হল এবং সরু গলি সমূহ মিনিটে মিনিটে প্রকম্পিত হয়ে উঠল, মানুষ জন আতংকিত হয়ে উঠল, ঘুমন্ত শিশু ও বয়স্করা ভয়ে ঘুম থেকে জেগে উঠল । এইধরনের যন্ত্রণাদায়ক ঘটনা যে হঠাৎ হয় তা নয় এই ধরনের ঘটনা ঢাকা শহরের নিত্য দিনের বিষয়। হরণ ব্যবহারের ওপর কঠোর আইন এবং আইনের প্রয়োগ এবং নীতিমালা না থাকায় আমাদের আজ এমন দুরাবস্থা। যা এখন মহামারীর আকার ধারণ করেছে। সুখের বিষয় হলো আমি লক্ষ্য করেছি ৫০টি দামী প্রাইভেট কার সরাদিন রাস্তায় চললে যতটুকু হরণ ব্যবহার করে বা শব্দ দূষণ করে (যদিও এসব কারের ইঞ্জিনের শব্দ ও হরণ শব্দ দূষনের মাত্রায় পড়ে না) সেটুকু রাস্তায় ১লক্ষ টাকার ১টি মোটর সাইকেল তার চেয়ে ১০০০গুন বেশি হরণ ব্যবহার করে থাকে। যা রীতিমত আতংকজনক। অথচ সে চাইলে এর পরিমাণ মাত্র ১০গুনে নামিয়ে আনতে পারে। কিন্তু সে তার লক্ষ টাকার গাড়ীর দাম্ভিকতা, অতিরিক্ত স্বাধীনতা অথবা অজ্ঞতার (যদিও এদের বেশিরভাগই প্রশিক্ষণ এবং লাইসেন্সবিহীন) কারণে পরিবেশ এবং সমাজের এমন ক্ষতি করে থাকে।


অন্যদিকে অতিসম্প্রতি এই সমস্যা ঢাকার বাহিরেও ছড়িয়ে পড়েছে ব্যাটারী চালিত অসংখ্য  অবৈধ/অনুমোদিত অটোরিক্সার কারণে । এটা এখন একটা ঝুঁকিপূর্ণ ও প্রাণঘাতী মহামারী বটে । এই অটোরিক্সার চালকদের নাই কোন শিক্ষা ফলে তাদের মধ্যে শব্দ দূষনের জ্ঞান কিংবা বেপরোয়া রিক্সা চালানোর কুফল বা যথেচ্ছ উচ্চ শব্দের হরণ ব্যবহারের কুফল অনুধাবন করা সহজ নয়। শুধু তা নয় এই বাহণ গুলো এত বেপরোয়া গতিতে চলে যে এসব বাহনে দ্রুত এবং নিরাপদ   নিয়ন্ত্রনের কোনরূপ ব্যবস্থা নাই। এমন ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থাতেও তারা ৩থেকে ৪ জন যাত্রী বহণ করতে দ্বিধাবোধ করেনা। ফলে প্রায়ই দেখা যায় একটু ধাক্কা লাগলে বা একটু কাত হলে বা যাত্রীর চাপে এসব অটোরিক্সার সরু (চিকন) চাকাগুলো বাঁকা হয়ে দুমুড়ে মুচড়ে যাত্রীসহ রাস্তার পাশে পড়ে থাকে। আবার দেখা যায় শহরের ভিতরে বা বাহিরে এসব অটো রিক্সার সামনে পিছনে লেখা থাকে ‘‘আমি প্রতিবন্ধী আমাকে ধাক্কা দিবেন না।’’ অথবা ‘‘ আমি প্রতিবন্ধী, আমার সাহয্যার্থে আমার রিক্সায় ওঠুন।’ এখন প্রশ্ন হলো একজন প্রতিবন্ধী সে নিজেই ঝুকিঁপূর্ণ সে কি করে অন্যকে ঝুকিঁমুক্ত রাখবে ? প্রশাসনের নাকের ডগা দিয়ে সে কোন সাহসে কাদের পরামর্শে এমন ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করার সুযোগ পায় ? তাই তাদেরকে প্রশাসন এর মাধ্যমে জোর পূর্বক এইসব অটোরিক্সা বন্ধ করা সহ এই সব রিক্সা হতে ব্যাটারী ও হরণ অপসারণ করাতে হবে। নতুবা সারা দেশের মানুষ অপরিমেয় ক্ষতির সম্মুক্ষিণ হবে।


 এই অবস্থা হতে মুক্তি পাওয়ার জন্য আমি চলমান সকল মোটর সাইকেল এ এসব ক্ষতিকর হরণ অপসারণ করা সহ সহণশলি মাত্রার হরণ সংযোজন এবং সকল চালকদের হরণ ব্যবহারের ওপর বিশেষ প্রশিক্ষণ বাধ্যতামূলক করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করছি।


 


পরিশেষে আপনাকে ধন্যবাদ জানাই সম্প্রতি (২০/০৪/২০১৯) আমার লেখা বিআরটিসির ফ্যান সংক্রান্ত একটি অভিযোগের বিষয়ে আপনার দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে এবং আপনার প্রয়োজনীয় গৃহীত পদক্ষেপের জন্য।


 


ধন্যবাদান্তে


আলী নেওয়াজ


৫,বিসিসি রোড (৪র্থ তলা), নবাবপুর, ঢাকা।


মোবইল : ০১৬৮৫৩৯৮৩১৮


জবাব :

See Reply

ধন্যবাদ, উচ্চ শব্দের হর্ণ বন্ধে পরিচালক রোড সেফটি শাখা থেকে লিফলেট বিতরণ ও বিআরটিএ’র মোবাইল কোর্ট নিয়মিত পরিচালিত হচ্ছে।


9507. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : চট্টগ্রাম
তারিখ ও সময় : 12 Jun, 2019 08:59:41
বর্ণনা :

 


 


বিষয়: অভিযোগ


জনাব,


 আপনার সদয় অবগতির জন্য এই মর্মে অভিযোগ দায়ের করিতেছি যে, আমি যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বিআরটিএ নতুন পাড়া চট্টগ্রাম দপ্তরে একটি অপেশাদার হালকা মোটরযানের ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার লক্ষ্যে আবেদন করি।  আমি অপেশাদার  ড্রাইভিং পরীক্ষার সকল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে গত ২৭/১/২০১৯ইং তারিখ বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে আমার ফিংগারপ্রিন্ট গ্রহণ করেন এবং অস্থায়ী অনুমতিপত্রে(রেফারেন্স নং-CD2019028892) আমার অনুকূলে একটি স্মার্ট ড্রাইভিং লাইসেন্স কার্ড বিতরণের তারিখ ২৮/৪/২০১৯ ইং ধার্য করা হয়। আমি ধার্য তারিখে উক্ত দপ্তরেরে সংশ্লিষ্ট শাখায় যোগাযোগ করলে আমার স্মার্ট কার্ডটি বিতরণ তারিখ আরো ৪(চার)মাস পিছিয়ে ৮/৮/২০১৯ ইং তারিখ ধার্য করা হয়।কিন্তু এত দীর্ঘ বিলম্বের কারণ সম্পর্কে কর্তৃপক্ষ স্পষ্টভাবে কিছুই জানাতে পারেনি। আমি স্বউদ্যোগী হয়ে আমার স্মার্ট ড্রাইভিং লাইসেন্স কার্ডটির একটি কপি কর্তৃপক্ষের নিকট হতে সংগ্রহ করি এবং সত্যয়নের নিমিত্ত সরকারি ফি পরিশোধপূর্বক তাতে কর্তৃপক্ষের নিকট হতে সত্যায়িত কপি সংগ্রহ করি।


*ছবি সংযুক্ত।


জবাব :

See Reply

ধন্যবাদ, অভিযোগে উল্লেথিত ড্রাইভিং লাইসেন্সের রেফারেন্স নং- CD2019028892 টি HSDL সর্ভার যাচাই করে দেখা যায় যে, গত ১৭-০৪-২০১৯ ইং তারিখে ড্রাইভিং লাইসেন্সটি প্যাকেট করে সংশ্লিষ্ট সার্কেলে প্রেরন করা হয়েছে। অভিযোগকারীকে উক্ত সার্কেলে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা হলো।


9506. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : চট্টগ্রাম
তারিখ ও সময় : 12 Jun, 2019 08:59:39
বর্ণনা :

 


 


বিষয়: অভিযোগ


জনাব,


 আপনার সদয় অবগতির জন্য এই মর্মে অভিযোগ দায়ের করিতেছি যে, আমি যথাযথ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে বিআরটিএ নতুন পাড়া চট্টগ্রাম দপ্তরে একটি অপেশাদার হালকা মোটরযানের ড্রাইভিং লাইসেন্স পাওয়ার লক্ষ্যে আবেদন করি।  আমি অপেশাদার  ড্রাইভিং পরীক্ষার সকল পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে গত ২৭/১/২০১৯ইং তারিখ বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে আমার ফিংগারপ্রিন্ট গ্রহণ করেন এবং অস্থায়ী অনুমতিপত্রে(রেফারেন্স নং-CD2019028892) আমার অনুকূলে একটি স্মার্ট ড্রাইভিং লাইসেন্স কার্ড বিতরণের তারিখ ২৮/৪/২০১৯ ইং ধার্য করা হয়। আমি ধার্য তারিখে উক্ত দপ্তরেরে সংশ্লিষ্ট শাখায় যোগাযোগ করলে আমার স্মার্ট কার্ডটি বিতরণ তারিখ আরো ৪(চার)মাস পিছিয়ে ৮/৮/২০১৯ ইং তারিখ ধার্য করা হয়।কিন্তু এত দীর্ঘ বিলম্বের কারণ সম্পর্কে কর্তৃপক্ষ স্পষ্টভাবে কিছুই জানাতে পারেনি। আমি স্বউদ্যোগী হয়ে আমার স্মার্ট ড্রাইভিং লাইসেন্স কার্ডটির একটি কপি কর্তৃপক্ষের নিকট হতে সংগ্রহ করি এবং সত্যয়নের নিমিত্ত সরকারি ফি পরিশোধপূর্বক তাতে কর্তৃপক্ষের নিকট হতে সত্যায়িত কপি সংগ্রহ করি।


*ছবি সংযুক্ত।


জবাব :

See Reply

ধন্যবাদ, অভিযোগের বর্ণনায় ঈদ উপলক্ষে যাত্রীবাহী বাসের অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট পরিবহনের নাম, গাড়ির নম্বর, ভাড়ার টিকেটের ফটোকপি ও গন্তব্য স্থান উল্লেখ করে অভিযোগ করা হলে মোটরযান আইন ও বিধি মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


9504. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : lakshmipur.thana:- Ramgong
তারিখ ও সময় : 08 Jun, 2019 16:15:01
বর্ণনা :

sir ami Rezaul horue zila:-lakshmipur. thana:-Ramgong.post:- dolta bazar.village :-japornogor,amar gramer kono valo rasta nei ja aca ta onak bocor thaka colar onupojugi. amader member.  chairman.mp ,sobaika onak bar bola hoyca kintu kono protikar nai.tai aponaka obogoto korlam .sir aponader sudristy kamona korci.


জবাব :

See Reply

বিষয়োক্ত অভিযোগকারীর সাথে যোগাযোগ পূর্বক অভিযোগকারীর গ্রামীণ সড়কটি শনাক্ত করা হয়। উক্ত গ্রামীণ সড়কটি সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর, সড়ক বিভাগ, লক্ষীপুর এর আওতাভূক্ত নয়।


9499. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : Dhaka -Laksam-Noakhali bus Route
তারিখ ও সময় : 03 Jun, 2019 07:17:07
বর্ণনা :

ঢাকা - লাকসাম - নোয়াখালী(সোনাপুর) রুটের  ১৬২ কিলোমিটার দূরত্বের জন্য সঠিক ও ন্যায্য বাস ভাড়া নির্ধারণের দাবি জানাই। 


 


বিআরটিএ এর ওয়েবসাইটে আন্তঃজেলার  বাস ভাড়ার তালিকায় ঢাকা - লাকসাম - নোয়াখালী(সোনাপুর)  রুটটির নামই উল্লেখ নাই। 


 


ঢাকা - ফেনী(মহিপাল) - চৌমুহনী - মাইজদি - সোনাপুর দূরত্ব ১৯৫ কিলোমিটার একটা রুট উল্লেখ আছে বিআরটিএ এর ওয়েবসাইটে কিন্তু এই রুটে এখন নোয়াখালী হতে  ঢাকার দিকে  কোন বাস চলাচল করেনা।


এখন নোয়াখালী হতে সব বাস লাকসাম - পদুয়ার বাজার বিশ্বরোড হয়ে ঢাকায় যাতায়াত করে।


অর্থাৎ এখন রুটটি্র নাম  হচ্ছে  ঢাকা - লাকসাম - নোয়াখালী( সোনাপুর) রুট। 


 


এমতাবস্থায়  ঢাকা - লাকসাম- নোয়াখালী(সোনাপুর) রুটটির ১৬২ কিলোমিটার দূরত্বের জন্য আন্তঃজেলা বাস ভাড়া ১ টাকা ৪২ পয়সা হারে  সঠিক ও ন্যায্য বাস ভাড়া নির্ধারণের জন্য মাননীয় সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী মহোদয় এবং মাননীয় সচিব মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন জানাই।  


 


 


 


বিনীত নিবেদক


 


মারুফ


 


স্টেডিয়াম পাড়া, মাইজদি, নোয়াখালী শহর, নোয়াখালী । 


জবাব :

See Reply

ধন্যবাদ, অভিযোগের উক্ত রুটটি অনুমোদিত রুট (যার নং-৫৫)। উক্ত রুটটিতে ইতোপূর্বে দূরত্ব ১৯৫ কিলোমিটার উল্লেখ করে বাস ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে, উক্ত রুটের দূরত্ব পুনরায় জানতে নির্বাহী প্রকৌশলী, ডাটাবেজ উপ-বিভাগ (সওজ), ডাটাবেজ বিভাগ, সড়ক ভবন, তেজগাঁও, ঢাকা বরাবর পত্র দেয়া হয়েছে।


9495. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : Kurigram
তারিখ ও সময় : 02 Jun, 2019 08:26:15
বর্ণনা :

Assalamualykum, I want to complain about your Bhurungamari to Rajshahi BRTC bus service. Every parts of this bus has been  unable to use. Every seats are not clean and unusable. This bus is totally unusable when It’s rain. We, the passengers are completely unhappy by this bus service .In this time, our appeal is to provide a new  bus in this road.        


জবাব :

See Reply

বর্ণিত অভিযোগকারীর সাথে সংশ্লিষ্ট ডিপোর ম্যানেজার (অপাঃ) এর সাথে মোবাইলে কথা হয়েছে। অভিযোগকারী বলেন বিগত ০৫ বছর যাবত বর্নিত রুটে পুরাতন গাড়ী দিয়ে বিআরটিসি রুটটি পরিচালিত করে আসছে। নতুন গাড়ী আমদানী করা হলেও এই রুটে কোন নতুন গাড়ী প্রদান করা হয়নি বিধায় বর্ণিত রুটে নতুন গাড়ী সংযোজন করার জন্য অনুরোধ করেন। অপরদিকে পূর্বের গাড়ী মেরামতের ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে, পাশাপাশি অন্য একটি মানসম্মত বাস দিয়ে উক্ত রুটটি পরিচালনা করছেন বলে সংশ্লিষ্ট ডিপোর ম্যানেজার অবগত করেন।


9493. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : Gulistan, Dhaka
তারিখ ও সময় : 31 May, 2019 03:43:32
বর্ণনা :

 


অত্যন্ত সম্মানের সাথে জানাচ্ছি যে, ঈদ উপলক্ষে গুলিস্থান টু দাউদকান্দি  পূর্বের  নির্ধারিত ভাড়া ১১০ টাকার পরিবর্তে ১৪০ টাকা রাখছেন। আরও গুরুত্বপূর্ণ যে টিকেটে কোন টাকার পরিমাণ এমনকি যাত্রার তারিখ পর্যন্ত নেই। সরকারি পরিবহণের এ ব্যবস্থা জনগনের ভোগান্তি  আরও বৃদ্ধি করবে বলে মনে করি। যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার সবিনয় অনুরোধ রইল।


জবাব :

See Reply

ধন্যবাদ, অভিযোগের বর্ণনায় বাসের নাম্বার , সময় ও ঘটনার তারিখ উল্লেখ না থাকায় প্রয়োজনীয় ব্যবসথা নেয়া যাচ্ছে না। সুনির্দিষ্টভাবে অবিযোগ কররে প্রতিকার পাওয়া যেতে পারে তবে, এতদ্ বিষয়ে ঈদের সময় বিআরটিএ’র মোাবাইল কোর্ট ও মনিটরিং টিম এর মাধ্যমে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।


9492. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : Daulatpur, Khulna
তারিখ ও সময় : 30 May, 2019 16:17:25
বর্ণনা :

আসসালামু আলাইকুম


স্যার,


সাতক্ষিরা মুন্সিগঞ্জে যাচ্ছিলাম।


আগে ও গিছি তখনের একটা গল্প বলি।


বাস আসার কথা ১০ টাই


১১ টার সময় কাউন্টার থেকে আমাদের বলা হলো জিরো পয়েন্টে যেতে ওখান থেকে আমার যাবো সেই বাসে


যে বাসটি মুন্সিগঞ্জ থেকে দৌলতপুরে আসবে।


আমরা ১ টার একটু আগে খুলনা ছারছিলাম।


আমি প্রায় মুন্সিগঞ্জে যায়


কারন ওখানে আমার দাদু বাড়ি।


১ টার সময় বাস ছারার পরে


ছিট বাদে মাঝখানে চেয়ার বসিয়ে মোট ৩ টা লাইন করে লোক নিচছে তারা।


তাদের তো আলাদা চেযার ও থাকে মাঝখানে বসানোর জন্য। 


আমি শেষ ৫ বার মনে হয় দাদু বাড়ি গিছি


প্রতিবার বাস দেড়ি করে আসে।


আর দুইবার আমাদের দৌলতপুর থেকে জিরুপয়েনট নিয়ে গেছে কাউন্টারের লোকেরা। 


শেষ বার একদম পেছনে ছিট পাইছিলাম।


বাসটার অবস্থা কেমন ছিলো বোঝাতে পারবোনা


তবে ফিটনেস বিহীন গাড়ি বাতিল করলে আগে ঐ গাড়িগুলো বাতিল হবে।


ছাদে পট্টি লাগানো।


আমার মাথায় সারা রাস্তা ছাদের মাটি পরতে পরতে গেছে।


মরিচা পরে গেছে।


আর যাত্রীর কথা বললে


ওরা ঐদিন একটা টিকিট ৩ বার পর্যনত বিক্রি করেছে


যাত্রীরা অভিযোগ ও করেছে।


সেদিন ও চেয়ার কিছু 


কিন্তু একটা পাবলিক বাসের থেকে অনেক বেশি যাত্রী তারা নিছিলো।


সবাই বলে ঢাকার দিকের গাড়িগুলো আমাদের দিকে পাঠাই দেয়।


কিন্তু আমার তা মনে হয়না।


মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অবশ্যই সবাইকে এক চোখে দেখেন।


তার উন্নয়নের জন্যই আজ আমরা এতদুর।


কিন্তু এটা কেমন উন্নয়ন? 


আমার অভিযোগ টি আপনাদের দেখার জন্য অনুরোধ জানাচ্ছি। 


আপনারা যদি ব্যপারটা না দেখেন আমি কিনতু ওপরে


অভিযোগ করবো।


ধন্যবাদ 


 


জবাব :

See Reply

ধন্যবাদ, অভিযোগের বর্ণনায় বাসের নাম্বার ও ঘটনার তারিখ উল্লেখ না থাকায় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাা নেয়া যাচ্ছে না। সুনির্দিষ্টভাবে অভিযোগ করলে প্রতিকার পাওয়া যেতে পারে। তবে, এ বিষয়ে পরিবহনের নাম ও তারিখ জানানোর জন্য অভিযোগকারীকে মোবাইলফোনের মাধ্যমে যোগাযোগ করা হলে তা বন্ধ পাওয়া যায়।


9491. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : ঢাকা
তারিখ ও সময় : 29 May, 2019 08:25:02
বর্ণনা :

শিক্ষার্থীদের কে সরকার হাফ পাশ দেওয়ার কথা বলার পরেও হাফ পাশ দেওয়া হয় না অনেক বাসে৷ দেওয়ান কোম্পানী হাফ পাশ দিলেও ঈদের সময় তারা শিক্ষার্থীদের হাফ পাশ দিচ্ছে না।  কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি এই ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়ার জন্যে। 


জবাব :

See Reply

ধন্যবাদ,  হাফ ভাড়া নেওয়ার বিষয়টি সম্পূর্ণ গাড়ির কোম্পানী এবং মালিকের উপর নির্ভর করে, এখানে বিআরটিএ’র আইনগতভাবে করণীয় কিছু নাই।