.:সড়ক যোগাযোগ সর্ম্পকিত যে কোন সমস্যার তথ্য প্রদান করুন:.    Back to Home | Search by Id 
Back to Home Page
 


Your IP Address: 34.203.28.212
Your Client IP Address: 34.203.28.212
Your Server IP Address: 34.203.28.212
Your Browser: CCBot/2.0 (https://commoncrawl.org/faq/)

সড়ক যোগাযোগ সর্ম্পকিত যে কোন সমস্যার তথ্য প্রদান করুন
প্রদানকারীর নাম : *

ফোন নম্বর: *


ই-মেইল : *


স্হান, জেলা : *

বর্ণনা : *

সমস্যার/ক্ষতিগ্রস্থ স্থানের ছবি (যদি থাকে):
(Max size : 2MB)

আরো ছবি দিন


কোড নম্বরটি লিখুন



তথ্য প্রদানে কোনো কারিগরী ত্রুটির সম্মুখীন হলে যোগাযোগ করুন - ৯৫৭৫৫২৭ এই নম্বরে, E-mail : programmer1@rthd.gov.bd

 
ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রাপ্ত সড়ক যোগাযোগ সর্ম্পকিত তথ্য
Print  
9452. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : মধ্যবাজার,সুনামগঞ্জ।
তারিখ ও সময় : 15 Feb, 2019 08:54:14
বর্ণনা :

সিলেট-সুনামগঞ্জ মহাসড়ক(R-280) এর প্রশস্তকরণ প্রকল্পের অগ্রগতি কতটুকু? এই প্রকল্পের ব্যয় এবং প্রশস্তকরণ প্রকল্পের কাজ কবে শেষ হবে?



9451. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড(কুমিল্লা)-লাকসাম- চৌমুহনী চৌরাস্তা - নোয়াখালী( মাইজদি) - সোনাপুর
তারিখ ও সময় : 12 Feb, 2019 06:10:27
বর্ণনা :

বরাবর


মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়


সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রণালয়


বাংলাদেশ সচিবালয়,  ঢাকা -১০০০ 


বিষয় ঃ-ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড--লাকসাম- চৌমুহনী চৌরাস্তা - নোয়াখালী( মাইজদি) - সোনাপুর পর্যন্ত ১৬২ কিলোমিটার দূরত্বের সঠিক ভাড়া নির্ধারণ এবং এই রুটটি বিআরটিএ এর ওয়েবসাইটে প্রকাশ করনের আবেদন। 


 মহাত্মন 


সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড--লাকসাম- চৌমুহনী চৌরাস্তা - নোয়াখালী( মাইজদি) - সোনাপুর পর্যন্ত মোট সড়ক দূরত্ব হচ্ছে ১৬২ কিলোমিটার। এই নোয়াখালী - লাকসাম - ঢাকা ১৬২ কিলোমিটার দূরত্বের জন্য বিআরটিএ এর আন্তঃজেলা বাসভাড়া প্রতি কিলোমিটার ১.৪২( এক টাকা বিয়াল্লিশ পয়সা হারে ১৬২*১.৪২= ২৩১/- এবং এর সাথে টোল চার্জ ও ফ্লাইওভার চার্জ ৪৫০+২৫০=৭০০/-÷৪০(প্রতি বাসে চল্লিশ যাত্রী হিসেবে)=১৭.৫০/- প্রতি যাত্রী,  এই হিসেবে মোট ভাড়া হয় {২৩১/-+১৭.৫০/-= ২৪৮.৫০/- অর্থাৎ ২৪৯/-} টাকা। কিন্তু এই রুটে অর্থাৎ নোয়াখালীর সোনাপুর - লাকসাম - ঢাকা রুটে হিমাচল ও একুশে যাত্রী প্রতি ভাড়া নিচ্ছে ৩৮০/- যাহা সম্পূর্ণ বে আইনী। আবার ইকোনো ও ঢাকা এক্সপ্রেস বাসগুলো চৌমুহনী পর্যন্ত ভাড়া নিচ্ছে ৩৮০/- যাহা সম্পূর্ণ বেআইনী। এই রুটের চলাচলকারী ইকোনো, হিমাচল, একুশে এক্সপ্রেস বাসগুলো ভাড়া নিচ্ছে ঢাকা হতে ফেনী - চৌমুহনী হয়ে মাইজদি - সোনাপুর পর্যন্ত ১৯৫ কিলোমিটার দূরত্বের হিসাবের  ভাড়া ,  ্কিন্তু বাসগুলো যাতায়াত করছে ঢাকা- লাকসাম--নোয়াখালী -সোনাপুর হয়ে। মোট কথা ঢাকা হতে ফেনী হয়ে মাইজদি -সোনাপুর রুটের ১৯৫ কিলোমিটারের ভাড়া ৩৮০/- আদায় করা হচ্ছে ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড- লাকসাম  -চৌমুহনী হয়ে মাইজদি - সোনাপুর হয়ে ১৬২ কিলোমিটারের ভাড়া যাহা অন্যায় ও অন্যায্য ।


ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড- লাকসাম  -চৌমুহনী - মাইজদি - সোনাপুর হয়ে ১৬২ কিলোমিটারের ভাড়া হওয়ার কথা ২৫০/-।  বিষয় বিআরটিএ ঢাকা হেড অফিসএর টিম দিয়ে  তদন্ত করে খতিয়ে দেখার জন্য মাননীয় মন্ত্রী ও মাননীয়  সচিব মহোদয়ের নিকট জোর আবেদন জানাই। 


ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড(কুমিল্লা)-লাকসাম- চৌমুহনী চৌরাস্তা - নোয়াখালী( মাইজদি) - সোনাপুর রুটের ১৬২ কিলোমিটারের ভাড়া কোন ভাবেই  ঢাকা -ফেনী(মহিপাল)  --চৌমুহনী চৌরাস্তা- মাইজদি -সোনাপুর রুটের ১৯৫ কিলোমিটারের  সমান হতে পারেনা।   


অতএব, বিনীত প্রার্থনা এই যে,ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড--লাকসাম- চৌমুহনী চৌরাস্তা - নোয়াখালী( মাইজদি) - সোনাপুর পর্যন্ত ১৬২ কিলোমিটার দূরত্বের সঠিক ভাড়া নির্ধারণ এবং এই রুটটি বিআরটিএ এর ওয়েবসাইটে ভাড়ার তালিকায়  প্রকাশ করনের  জন্য নোয়াখালীবাসীর পক্ষ থেকে মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন জানাচ্ছি। 


বিনীত নিবেদক


সিয়াম হোসেন


ছাত্র, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,


সোনাপুর, নোয়াখালী। 


 



9450. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড(কুমিল্লা)-লাকসাম- চৌমুহনী চৌরাস্তা - নোয়াখালী( মাইজদি) - সোনাপুর
তারিখ ও সময় : 12 Feb, 2019 06:08:02
বর্ণনা :

বরাবর


মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়


সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রণালয়


বাংলাদেশ সচিবালয়,  ঢাকা -১০০০ 


 


বিষয় ঃ-ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড--লাকসাম- চৌমুহনী চৌরাস্তা - নোয়াখালী( মাইজদি) - সোনাপুর পর্যন্ত ১৬২ কিলোমিটার দূরত্বের সঠিক ভাড়া নির্ধারণ এবং এই রুটটি বিআরটিএ এর ওয়েবসাইটে প্রকাশ করনের আবেদন। 


 


মহাত্মন 


সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড--লাকসাম- চৌমুহনী চৌরাস্তা - নোয়াখালী( মাইজদি) - সোনাপুর পর্যন্ত মোট সড়ক দূরত্ব হচ্ছে ১৬২ কিলোমিটার। এই নোয়াখালী - লাকসাম - ঢাকা ১৬২ কিলোমিটার দূরত্বের জন্য বিআরটিএ এর আন্তঃজেলা বাসভাড়া প্রতি কিলোমিটার ১.৪২( এক টাকা বিয়াল্লিশ পয়সা হারে ১৬২*১.৪২= ২৩১/- এবং এর সাথে টোল চার্জ ও ফ্লাইওভার চার্জ ৪৫০+২৫০=৭০০/-÷৪০(প্রতি বাসে চল্লিশ যাত্রী হিসেবে)=১৭.৫০/- প্রতি যাত্রী,  এই হিসেবে মোট ভাড়া হয় {২৩১/-+১৭.৫০/-= ২৪৮.৫০/- অর্থাৎ ২৪৯/-} টাকা। কিন্তু এই রুটে অর্থাৎ নোয়াখালীর সোনাপুর - লাকসাম - ঢাকা রুটে হিমাচল ও একুশে যাত্রী প্রতি ভাড়া নিচ্ছে ৩৮০/- যাহা সম্পূর্ণ বে আইনী। আবার ইকোনো ও ঢাকা এক্সপ্রেস বাসগুলো চৌমুহনী পর্যন্ত ভাড়া নিচ্ছে ৩৮০/- যাহা সম্পূর্ণ বেআইনী। এই রুটের চলাচলকারী ইকোনো, হিমাচল, একুশে এক্সপ্রেস বাসগুলো ভাড়া নিচ্ছে ঢাকা হতে ফেনী - চৌমুহনী হয়ে মাইজদি - সোনাপুর পর্যন্ত ১৯৫ কিলোমিটার দূরত্বের হিসাবের  ভাড়া ,  ্কিন্তু বাসগুলো যাতায়াত করছে ঢাকা- লাকসাম--নোয়াখালী -সোনাপুর হয়ে। মোট কথা ঢাকা হতে ফেনী হয়ে মাইজদি -সোনাপুর রুটের ১৯৫ কিলোমিটারের ভাড়া ৩৮০/- আদায় করা হচ্ছে ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড- লাকসাম  -চৌমুহনী হয়ে মাইজদি - সোনাপুর হয়ে ১৬২ কিলোমিটারের ভাড়া যাহা অন্যায় ও অন্যায্য ।


ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড- লাকসাম  -চৌমুহনী - মাইজদি - সোনাপুর হয়ে ১৬২ কিলোমিটারের ভাড়া হওয়ার কথা ২৫০/-।  বিষয় বিআরটিএ ঢাকা হেড অফিসএর টিম দিয়ে  তদন্ত করে খতিয়ে দেখার জন্য মাননীয় মন্ত্রী ও মাননীয়  সচিব মহোদয়ের নিকট জোর আবেদন জানাই। 


ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড(কুমিল্লা)-লাকসাম- চৌমুহনী চৌরাস্তা - নোয়াখালী( মাইজদি) - সোনাপুর রুটের ১৬২ কিলোমিটারের ভাড়া কোন ভাবেই  ঢাকা -ফেনী(মহিপাল)  --চৌমুহনী চৌরাস্তা- মাইজদি -সোনাপুর রুটের ১৯৫ কিলোমিটারের  সমান হতে পারেনা।   


অতএব, বিনীত প্রার্থনা এই যে,ঢাকা - পদুয়ারবাজার বিশ্বরোড--লাকসাম- চৌমুহনী চৌরাস্তা - নোয়াখালী( মাইজদি) - সোনাপুর পর্যন্ত ১৬২ কিলোমিটার দূরত্বের সঠিক ভাড়া নির্ধারণ এবং এই রুটটি বিআরটিএ এর ওয়েবসাইটে ভাড়ার তালিকায়  প্রকাশ করনের  জন্য নোয়াখালীবাসীর পক্ষ থেকে মাননীয় মন্ত্রী মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন জানাচ্ছি। 


বিনীত নিবেদক


সিয়াম হোসেন


ছাত্র, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,


সোনাপুর, নোয়াখালী। 


 


 


 


 


 



9449. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : ঢাকা
তারিখ ও সময় : 10 Feb, 2019 08:31:53
বর্ণনা :

জনাব, সালাম ও শুভেচ্ছা নিবেন, যানযট নিরসনের লক্ষ্যে মিরপুর বাসীর জন্য আগারগাঁও রেডিও ভবন মোড় হতে মিরপুর-২ নং সড়ক নির্মাণ করা হয় কয়েক বছর পূর্বে বর্তমানে সড়কটির যে অব্যবস্থাপনা সেটা চোখে পড়ার মত:


১. সড়কের পার্শ্বের দোকানের বিভন্ন মালামাল রেখে রাস্তা দখল


২. দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন কোম্পানির জরাজীর্ন গাড়ি রাস্তার উপর পার্কিং করে রাখা (অব্যবহৃত গাড়ি)


৩. রাস্তার উপর বিদ্যুতের খাম্বা ফেলে রাখা 


৪. রাস্তায় তুলনামূলক লেগুনার হরহামেশা চলাচল


৫.  যত্রতত্র লেগুনা, ভ্যান ও অন্যন্য গাড়ি অপ্রয়োজনে পার্কিং করে রাখা 


৬. সড়কে স্থাপিত লাইটের আলো জ্বালানোর ব্যবস্থা করা 


৭. সড়কের পার্শ্ববর্তী বর্জ্য ব্যবস্থাপনার স্থান করে দেয়


৮। রাস্তা দখল করে ভাংগাড়ির ব্যবসা বন্ধ করা 


জবাব :

See Reply

আপনার অভিযোগের উল্লিখিত বিষয়গুলো সিটি কর্পোরেশনের আওতাভুক্ত বিধায় স্থানীয় সরকার বিভাগ সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ করা হলো।


9448. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : ইলিশাঘাট টু মতিরহাট পয়েন্ট
তারিখ ও সময় : 06 Feb, 2019 08:36:33
বর্ণনা :

বরাবর


মাননীয় মন্ত্রী


সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রণালয়


বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা- ১০০০


 


বিষয় ঃ- ভোলা জেলার  ইলিশাঘাট হতে লক্ষ্মীপুর জেলার মতিরহাট লঞ্চ ঘাট পয়েন্ট পর্যন্ত  মেঘনা নদীর উপর   প্রায় আট (৮)  কিলোমিটার দীর্ঘ সেতু নির্মাণের আবেদন ।


মহাত্মন 


সবিনয় বিনীত নিবেদন এই যে, ভোলা জেলার  ইলিশাঘাট হতে লক্ষ্মীপুর জেলার মতিরহাট পয়েন্টে মেঘনা নদীর উপর দিয়ে প্রায় ৮ কিলোমিটার দীর্ঘ সেতু নির্মাণ এখন  দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের একুশ জেলার  মানুষের  সময়ের   দাবি।  চায়না সরকার  ইতিমধ্যে তাদের নিজেদের দেশে দুইটি দ্বীপকে  সংযুক্ত করতে  প্রায় ৫৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সেতু বানিয়ে ফেলেছে  যাহা ইতিমধ্যে বিবিসি বাংলার মাধ্যমে বিশ্ববাসী জানতে পেরেছে   ।  আইএমএফ এবং বিশ্বব্যাংকএর অর্থায়নে ভোলা - লক্ষ্মীপুর এর মধ্যে সেতু নির্মাণ এখন সহজেই করা যেতে পারে বলে বিশেষজ্ঞগণ মনে করেন  । ভোলা জেলার  ইলিশাঘাট হতে লক্ষ্মীপুর জেলার মতিরহাট লঞ্চ ঘাট পয়েন্টের মাঝে মেঘনা নদীর উপর দিয়ে এই রুটে সেতু নির্মিত হলে দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের বরিশাল ও খুলনা বিভাগের সাথে দেশের দক্ষিণ পূর্ব অঞ্চলের চট্টগ্রাম বিভাগের মাঝে সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপিত হবে।  আর এতে দেশের জিডিপির প্রবৃ্দ্বির হার ১০ শতাংশের উপর ছাড়িয়ে যাবে , বাংলাদেশ একটি উন্নত বাংলাদশে পরিণত হবে ২০৩০ সালের মধ্যেই।  বরিশাল - ভোলা - লক্ষ্মীপুর( মতিরহাট)- তোরাবগঞ্জ - সোনাপুর - সোনাগাজী- জোরারগঞ্জ- চট্টগ্রাম রুটে সরাসরি বাস ট্রাক চলতে পারবে যদি ভোলা - লক্ষীপুর এর মাঝে মেঘনার বুকে সেতু নির্মাণ করা হয়। আবার বরিশাল - ভোলা - লক্ষ্মীপুর(মতিরহাট) - লক্ষ্মীপুর - রামগঞ্জ - হাজীগঞ্জ - কচুয়া - গৌরীপুর - ঢাকা রুটেও যানবাহন সহজেই চলাচল করতে পারবে।   এমতাবস্থায়, ইলিশাঘাট হতে লক্ষ্মীপুরের মতিরহাট পয়েন্টের মধ্যে আট/ দশ  কিলোমিটার দীর্ঘ  সেতু নির্মাণ এর কাজটি এখই শুরু করতে  মাননীয় সড়কপরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন জানাচ্ছি ।


 


 


বিনীত নিবেদক


শাকিল আহমেদ


বিএম কলেজ রোড, বরিশাল।  


 


 


  



9447. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : ইলিশাঘাট টু মতিরহাট ঘাট
তারিখ ও সময় : 06 Feb, 2019 07:55:34
বর্ণনা :

 ভোলার ইলিশাঘাট হতে লক্ষ্মীপুরের মতিরহাট পয়েন্টে মেঘনা নদীর উপর দিয়ে প্রায় ৮ কিলোমিটার দীর্ঘ সেতু নির্মাণ এখন  দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের একুশ জেলার  মানুষের  সময়ের   দাবি।       চায়না ইতিমধ্যে তাদের নিজেদের দেশে দুইটি দ্বীপ কে  সংযুক্ত করতে ৫৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সেতু বানিয়ে ফেলেছে   ।    আই এম এফ এবং বিশ্বব্যাংংকএর অর্থায়নে ভোলা - লক্ষ্মীপুর এর মধ্যে সেতু নির্মাণ এখন সহজেই করা যেতে পারে বলে বিশেষজ্ঞগণ মনে করেন  ।  এই রুটে সেতু নির্মিত হলে দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের বরিশাল ও খুলনা বিভাগের সাথে দেশের দক্ষিণ পূর্ব অঞ্চলের সরাসরি সড়ক যোগাযোগ স্থাপিত হবে। বরিশাল - ভোলা - লক্ষ্মীপুর( মতিরহাট)- তোরাবগঞ্জ - সোনাপুর - সোনাগাজী- জোরারগঞ্জ- চট্টগ্রাম রুটে সরাসরি বাস ট্রাক চলতে পারবে যদি ভোলা - লক্ষীপুর এর মাঝে মেঘনার বুকে সেতু নির্মাণ করা হয়। ভোলার ইলিশাঘাট হতে লক্ষ্মীপুরের মতিরহাট পয়েন্টের মধ্যে সেতু নির্মাণ এর কাজটি এখই শুরু করতে    মাননীয় সড়কপরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন জানাচ্ছি   । 


 


 বিনীত নিবেদক


শাকিল আহমেদ


বি এম কলেজ রোড, বরিশাল।              



9446. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : গাজীপুর শ্রীপুর
তারিখ ও সময় : 05 Feb, 2019 21:09:41
বর্ণনা :

ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়ক এ মাওনা এর এম সি বাজার হতে শিশু পল্লী রোড NDE নামক একটি রেডী মিক্স সিমেন্ট কারখানার অতিরিক্ত ওজনের হাজারো সিমেন্ট ভোজাই গাড়ী ২৪ ঘন্টা চলাচলের ফলে দীর্ঘদিনযাবত পাকা রাস্তাটি দেখে বুঝার উপায় নেই কাঁচা না পাকা অতিরিক্ত ওজনের ফলেরাস্তার পাশে অবস্থিত বাড়িগুলিতে দেখা দিচ্ছে ফাটল।এলাকার সাধারণমানুষ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করলেও কোম্পানির মালিক স্থানীয় অাওয়ামিলীগ ক্যাডারদের মাসিক মোটা অঙ্কের টাকার বিনিময়ে তার কোম্পানিটি চালিয়ে যাচ্ছে রাস্তার পাশাপাশি পরিবেশের নষ্ট হচ্ছে।এটি দেখার কোনো কর্মকর্তা নে?



9445. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : নাটোর
তারিখ ও সময় : 04 Feb, 2019 15:57:49
বর্ণনা :

আমদের গ্রামের ছোট্ট এক র্বীজ ভেঙ্গে পড়ার দশা । যদি উত্তর পাই বিস্তারিত লিখবো 


জবাব :

See Reply

উল্লিখিত সেতুটি সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর-এর আওতাধীন কিনা তা নিশ্চিত হয়ে এবং কোন এলাকায় তা বিস্তারি উল্লেখপূর্বক পুনরায় দাখিল করার অনুরোধ করা হলো। 


9444. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : ঢাকা
তারিখ ও সময় : 30 Jan, 2019 05:11:39
বর্ণনা :

শ্রদ্ধেয় স্যার,


সালাম ও শুভেচ্ছা নিবেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানের সাথে সাথে বাস্তবায়নের দিকে ক্রমাগত আশাতীতভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। সরকার জনগনের কল্যাণার্থে  বিভিন্ন ধরনের মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে চলেছে প্রতিনিয়ত। এরই সফল বাস্তবায়নে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলা গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়িত হবে বলে আমরা সকলে বিশ্বাস ও আস্থা রাখি। এরই ধারাবাহিকতায় সরকার হতে নিয়েছে ঢাকা শহরের জনগনের জীবন মান উন্নয়নে চলাচলের সুবিধা ও সময় সাশ্রয়ের প্রকল্প মেট্রোরেল প্রকল্প যার লাইন-৬ এর কাজ ইতোমধ্যে দৃশ্যমান হতে শুরু করেছে। প্রকল্পের কাজ চলমান থাকাতে রাস্তা পূরে্র তূলনায় অনেকটা সরু হয়ে গেছে। যার কারণে যানযট কিছুটা হলেও বেশী অনুভূত হয়। ভবিষ্যতের চলাচলের ভাল সম্ভাবনার কথা চিন্তা করে অনেকেই কোন ধরনের বাজে মন্তব্য করে না। কিন্তু বর্তমানে কিছু কিছু সড়কের যে চিত্র:


 


১।  মিরপুর ১২ হতে খামারাবাড়ি পযন্ত সড়কে অবাধে চলাচল করছে হাজার ও রিক্সা,ভ্যানসহ অনুমোদনহীন বিভিন্ন বাহন যার ফলে রাস্তার অধিকাংশ অংশ দখলে চলে যাচ্ছে যার ফলে মিরপুর-১২ হতে খামার বাড়ি চলাচলে যেন যন্ত্রণার ফাদ তৈরী করা হয়েছে।


২। বাণিজ্য মেলা চলাকালীন এর আশপাশের সড়কে হাজার ও রিক্সা,ভ্যানসহ অনুমোদনহীন বিভিন্ন বাহন। পুলিশকে ম্যানেজ করে সিএনজি ও রিক্সা/ভ্যান যত্র তত্র পার্কিং ও ফুটপাত দখল করে দোকান বসানসহ হাজারও অব্যবস্থাপনা।


 


৩। এছাড়াও আগারগাও রেডিও ভবন  হতে মিরপুর-২, ৬০ ফুট সড়কের যে অব্যবস্থাপনা সেটা বলার অপেক্ষা রাখে না। তিন লেনের সড়ক হলেও ব্যবহার করা যায় মাত্র ১টি লেন। গোটা ফুটপাতটাই দখলে বিভিন্ন বাসা বাড়ি ও ব্যবসা বাণিজ্যের মালামাল রাস্তার উপর রেখে রাস্তার অধিকাংশ অংশ দখল করে রাখা হচ্ছে।


 


৪। ডেসকোর বিদ্যুৎ লাইনের কাজের জন্য আগারগাঁওস্থ এলাকা রাস্তা খোড়া খুড়ির পর সেটা পুনরায় আবার মেরামত হয়নি দীর্ঘ প্রায় ১ বছর। ফলে রাস্তাগুলো চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পড়েছে। 


 


আমরা কি তাহলে সবাই ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকা সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের কাছে একেবারেই জিম্মি? দায়িত্ববোধ বলে কি কোন কিছু নেই? নাগরিক অধিকার থেকে সদা সর্বদা আমরা কি বঞ্জিত হচ্ছি না?


 


জবাব :

See Reply

অভিযোগটি বিআরটিএ- এর কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত নয়।


9443. প্রদানকারীর বিবরণ (নাম,ফোন ইত্যাদি) : মতামত প্রদানকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হচ্ছে না।
ক্ষতিগ্রস্থ স্হান, জেলা : গুলিস্তান
তারিখ ও সময় : 20 Jan, 2019 06:01:14
বর্ণনা :

জনাব ,গুলিস্তান কাপ্তান বাজার থেকে  সাইনবোর্ডে গামি সব বাস ২৫  টাকা ভাড়া।লোকাল বাস গুলো  সিনডিকেট করে সাধারন মানুষ থেকে আদায়  করে নিচ্চে। এখন যে যাএী যেখানি যায় ভাড়া ২৫ টাকা দিতে হবে। কোনো যাএী যদি কাজলা, সনিআখড়া ,রায়েরবাগ, সাইনবোর্ডে নামে তাহলে ভাড়া ২৫ টাকা দিতে হবে। সব লোকাল বাস সিটিং  করে এই কাজ গুলো করছে। কোনো লোকাল বাস নাই এখণ ।সাধারণ মানুষের দুভোগ । দয়া করে  আপনাদের হস্তখেপ কামনা করছি।


জবাব :

See Reply

বিআরটিএ- এর নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটগণ অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বিষয়ে প্রতিনিয়ত মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করছে। জানুয়ারী ২০১৯ মাসে ১৫৮ টি মামলার মাধ্যমে ২,৯০১০০ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। অভিযোগে সুনির্দিষ্ট বাস এর নাম্বার না থাকায় সংশ্লিষ্ট বাসের বিষয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না।